দিল্লির হিংসা নিয়ে প্রতিবাদী কন্ঠ জাভেদ আকতারের বললেন ‘নামের জন্যই কি বলির পাঁঠা তাহির?’,

Spread the love

ওয়েব ডেস্ক:- পোষাক দিয়ে মানুষ চেনা ,জাত চেনা,নাম দিয়ে মানুষ চেনা জাত চেনা ।এ এক অশুভ বার্তা। দিলী শত নিঁখোজ। “কত লোক মারা গিয়েছে, কত জন আহত হয়েছে, কত বাড়ি জ্বলেছে, কত দোকানে লুট চালানো হয়েছে, কত লোক ভীত-সন্ত্রস্ত, কিন্তু পুলিশ শুধু একজনের বাড়িতে হানা দিয়েই সিল করেছে এবং গৃহকর্তাকে খুঁজছে। ঘটনাচক্রে ওঁর নামও তাহির। দিল্লি পুলিশের এমন দক্ষতাকে সাধুবাদ জানাতে হয়,” দিল্লি নিয়ে ফের বিস্ফোরক জাভেদ আখতার। কেন শুধু AAP নেতা তাহির হোসেনের নামেই এফআইআর দায়ের হল? প্রশ্ন তুলেছেন বলিউডC সংগীতকার।

জাভেদের এই টুইটের পরই নেটিজেনদের একাংশ তাঁকে কদর্য আক্রমণ করতে শুরু করে। ‘একজন দোষীর হয়ে কেন কথা বলছেন?’ প্রশ্ন তুলেছেন অনেকেই। সমালোচনা তুঙ্গে উঠতেই আরেকটি টুইট করে তাঁর বক্তব্য স্পষ্ট করে দেন জাভেদ। তাঁর কথায়, “আমার মন্তব্যকে বিকৃত করা হচ্ছে। আমি বলছি না ‘কেন তাহির’, আমার বক্তব্য ‘কেন শুধু তাহিরকেই’ বলির পাঁঠা করা হল? পুলিশের উপস্থিতিতে যারা হিংসা ছড়ানোর হুমকি দিল, তাদের বিরুদ্ধে কেন এফআইআর দায়ের হল না? হাই কোর্টও এক্ষেত্রে্ দিল্লি পুলিশের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে!” 

,প্রসঙ্গত, ৩ দিন ধরে দিল্লির উত্তর-পূর্ব চলতে থাকা হিংসার বলি হয়েছেন অঙ্কিত শর্মা। মঙ্গলবার জাফরাবাদে আপ নেতা তাহির হোসেনের বাড়ি সংলগ্ন একটি নর্দমা থেকেই আইবি কর্মী অঙ্কিত শর্মার দেহ উদ্ধার হয়। বুধবার অঙ্কিতের দেহ উদ্ধারের পরই, তাঁর বাবা রবীন্দ্র শর্মা তাহিরের বিরুদ্ধে অভিযোগ তোলেন, “তাহির হুসেনের অনুগামীরাই আমার ছেলেকে খুন করেছে। মারধরের পর অঙ্কিতকে গুলি করা হয়েছে।” যার ভিত্তিতে বৃহস্পতিবার রাতে তাহির হোসেনের নামে খুন এবং অপহরণের অভিযোগে মামলা দায়ের হয়। ইতিমধ্যেই তাহির হুসেনের কারখানায় তালা ঝুলিয়েছে দিল্লি পুলিশ। সেই তাহির প্রসঙ্গেই শুক্রবার জাভেদ মন্তব্য করেছেন যে নামের জন্যেই শুধু তাহিরের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের হল?
অন্যদিকে তাহির হোসেনের বাড়ি থেকে প্রচুর পরিমাণে পেট্রোল, বোমা, পাথর, অ্যাসিডের বোতল পাওয়ার পর আম আদমি পার্টি থেকে সাসপেনড করা হয়েছে তাহিরকে। যথাযথ প্রমাণ না পাওয়া গেলে কিংবা ক্লিনচিট না মেলা পর্যন্ত সাসপেনড-ই থাকবেন তাহির, ঘোষণা AAP-এর।  

সৌজন্য:- সংবাদ প্রতিদিন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.