দিলীপদা আজ অবহেলিত অথচ একাই বিজেপিকে এই জায়গায় নিয়ে এসেছে , ওনার জন্য দুঃখ হয়, বললেন ফিরহাদ হাকিম

Spread the love

নিউজ ডেস্ক : মোদি মন্ত্রীসভায় পুরস্কার স্বরূপ অনেককে আজ স্থান দেওয়া হচ্ছে। বাদ দেওয়া হয়েছে বহু মন্ত্রীকে। বাংলা থেকে ও কেন্দ্রীয় মন্ত্রী হচ্ছেন ৪ জন। দিলীপ ঘোষের নাম ঘোরাফেরা করলেও মন্ত্রী হচ্ছেন না তিনি। বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্বের সিদ্ধান্ত নিয়ে সরাসরি কোনও মন্তব্য করতে চাননি ফিরহাদ হাকিম। তবে ব্যক্তিগতভাবে তাঁর উপলব্ধি, অবহেলার শিকার দিলীপ ঘোষ। তিনি বলেন, ওনার জন্য দুঃখ হয়। বিজেপি বর্তমানে রাজ্যে যে অবস্থায় আছে তার পিছনে তার অবদানই সব থেকে বেশি। কিন্তু তিনি অবহেলিত। উল্লেখ্য, সাম্প্রতিক সময়ে রাজ্য রাজনীতিতে ও দিলীপ অবহেলিত। তার জায়গায় শুভেন্দু কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের কাছে বেশি গুরুত্ব পাচ্ছেন। ঠিক সেই সময়ে ও ফিরহাদের এই মন্তব্য তাৎপর্যপূর্ণ।

এক মোদী মন্ত্রিসভার রদবদল নিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নে বুধবার ফিরহাদ হাকিম বলেন,’এটা ওঁদের দলের ব্যাপার। এটা নিয়ে আমি কী বলব! কে পাবে না পাবে এটা ওঁদের ব্যাপার। আমি তো বিজেপির সদস্য নই। বিজেপির নীতিকে বিশ্বাসও করি না। দেখা যাক হাফ প্যান্টের জায়গায় ফুলপ্যান্ট পরে কিনা।’

দিলীপ ঘোষ মন্ত্রী হচ্ছেন না। কী বলবেন? ফিরহাদের কথায়,’দিলীপদাকে নিয়ে সত্যিই দুঃখ হয়। বিজেপির আজকের অস্তিত্বের নেপথ্যে দিলীপদা। একাই লড়ে গিয়েছেন। আজকে সেই লোকটা কোথাও যেন অবহেলিত হয়েছেন। এটা আমার নিজের উপলব্ধি। দলের তরফে বলছি না।’

২০১৯ সালে মোদী দ্বিতীয়বার ক্ষমতায় ফেরার পর শোনা যাচ্ছিল পূর্ণমন্ত্রী করা হতে পারে দিলীপ ঘোষকে। কিন্তু তখনও মন্ত্রী হওয়া হয়নি তার। চলতি বছর ডিসেম্বরে শেষ হচ্ছে দিলীপের রাজ্য সভাপতি পদের মেয়াদ। আর সেই মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই দিলীপকে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী করা হতে পারে বলে জল্পনা চলছিল একটা মহলে। অনেকে বলছিলেন, শুভেন্দু অধিকারীকে রাজ্য রাজনীতিতে নীতি নির্ধারকের স্থান দিয়ে দিলিপকে কেন্দ্রীয় মন্ত্রীসভায় অন্তর্ভুক্ত করা হবে গুঞ্জন চলছিল। তবে দিলীপ এবারও মন্ত্রী হচ্ছেন না। বাংলা থেকে কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভায় ঠাঁই পেতে চলেছেন শান্তনু ঠাকুর, নিশীথ প্রামাণিক, সুভাষ সরকার ও জন বার্লা। এরই মাঝে আজ সবার রাজ্যের বিজেপি যুব মোর্চার সভাপতি পদ থেকে বঞ্চনার অভিযোগ তুলে ইস্তফা দেন সৌমিত্র খাঁ। তিনিও সাম্প্রতিক সময়ে রাজ্যে বিজেপির জন্য তার ভূমিকার কারণে কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভায় স্থান পাওয়ার প্রত্যাশায় ছিলেন। কিন্তু সেই আশা পূরন না হওয়ায় ইস্তফা বলে খবর ঘনিষ্ট মহল সূত্রে।

সৌজন্য :- N.B tv

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.