আসুন দেখে নিই কি ভাবে করোনা দেশে দেশে বাড়ছে,লকডাউনই পারে এই বাড়ন্ত আটকাতে

Spread the love

অয়ন বাংলা,নিউজ ডেস্ক:- গোটা দেশে ,গোটা বিশ্ব আজ স্তব্ধ ।করোনা একেবারে গোট বিশ্বকে আতঙ্কে ফেলেছে।আসুন দেখে নিই কি ভাবে বিশ্বে করোনা ছড়িয়েছে।

প্রথমেই ইটালী, আমেরিকা এবং ভারতের মোট কোভিড পজিটিভ কেসের একটা পরিসংখ্যান দেখা যাক।
ইটালী:
২৪শে ফেব্রুয়ারি- ১২৪
১৫ই মার্চ- ২১,১৫৭
২৮শে মার্চ- ৯২,৪৭২
আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্র:
২৪শে ফেব্রুয়ারি- ৩৫
১৫ই মার্চ- ১৬৭৮
২৮শে মার্চ- ১,২৩,৭৫০
ভারতবর্ষ:
২৪শে ফেব্রুয়ারি- ৩
১৫ই মার্চ- ১০৭
২৮শে মার্চ- ১০৩৭
এতক্ষণে যারা ভারতের মোট কেসের সংখ্যা দেখে মনে মনে একটু আস্বস্ত হলেন, বলে রাখি, ভারতের ক্ষেত্রে এই সংখ্যাটা টিপ অফ দ্য আইসবার্গ বললেও সেটা কম বলা হবে। কারণ? ইতালীতে প্রতি এক মিলিয়ন জনসংখ্যায় ৫২৬৮ জনের কোভিড-19 পরীক্ষা করা হয়েছে, আমেরিকায় ১২৮০ জনের, সেখানে আমাদের দেশে সংখ্যাটা ১৮! আমরা জানিও না কত শত মানুষ আমারই চারপাশে এই ভাইরাস নিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে, প্রতি মুহূর্তে নিঃশ্বাস ফেলছে আমার ঘাড়ের উপর!

আমার দেশে National Health Profile- 19 এর সর্বশেষ রিপোর্ট অনুযায়ী মোট হাসপাতালের বেড সংখ্যা ৭,১৩,৯৮৬। অর্থাৎ প্রতি ১০০০ জন এ ০.৫৫ টা করে বেড!! এর মধ্যে ICU বেড সংখ্যা খুব বেশী হলেও ৫০,০০০! এর অর্ধেক ভেন্টিলেটর ধরলেও সংখ্যাটা ২৫,০০০ এর বেশী না।
এই দেড়শো কোটির দেশে যদি ১০ শতাংশ মানুষ ও আক্রান্ত হয় এবং তার ১০ শতাংশ মানুষকেও যদি হাসপাতালে ভর্তি করতে হয়, সংখ্যাটা প্রায় দেড় কোটি! ICU, ভেন্টিলেটর তো শত মাইল দূরের কথা, হাসপাতালের অর্ধেক বেড পর্যন্ত জুটবে না!!

বুঝতে পারলেন কিছু? আমরা এই মুহূর্তে একটা ভীষণ ভয়ঙ্কর সুপ্ত আগ্নেয়গিরির চূড়ায় দাঁড়িয়ে আছি, যে কোনো মুহূর্তে ছাই হয়ে যাওয়ার অপেক্ষায়। এক দেড় মাস পরের ছবিটা একটু কল্পনা করে নিন মনে মনে! এই ভবিষ্যতের মৃত্যু উপত্যকার ছবি একটু দেখতে শুরু করুন। ভয় পাবে। ভয় পাচ্ছে এবার একটু একটু? একটু ভয় পাক, পাওয়ার প্রয়োজন আছে। তাহলে প্রতিদিন বাজারে টাটকা টাটকা সব্জি, মাছ, মাংস কেনার লাইনে ভিড়টা যদি একটু কমে! লক ডাউন কে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে “বাড়িতে বসে ভালো লাগছে না” এর মানুষগুলোর অবাধ ঘুরে বেড়ানো যদি একটু কমে!

এ দেশের ভবিষ্যৎ লেখার দায়িত্ব এবং কলম দুটোই এখন আমাদের, আপনাদের হাতে।
লিখুন, বাড়িতে থেকেই লিখুন।।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.