চলে গেলেন কিংবদন্তী অভিনেতা দিলীপ কুমার, সকাল ৭.৩০ মিনিটে প্রয়াত হন

Spread the love

নিউজ  ডেস্ক: – প্রয়াত কিংবদন্তী অভিনেতা দিলীপ কুমার। বুধবার সকাল ৭.৩০ মিনিট দেহাবসান হয় ৯৮ বছরের হিন্দি সিনে জগতের ওই দিকপালের।

দীর্ঘদিন ধরেই বার্ধক্যজনিত অসুস্থতায় ভুগছিলেন দিলীপ। মুম্বইয়ের হিন্দুজা হাসপাতালের আইসিইউ-তে ভরতি ছিলেন তিনি। গত ৩০ জুন তাঁকে হাসপাতালে ভরতি করা হয়। কয়েক দিন আগেই তাঁর শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল বলে টুইটারে জানিয়েছিলেন সায়রা।

 

দিলীপ কুমার ; জন্ম: ১১ ডিসেম্বর ১৯২২, জন্ম নাম মুহাম্মদ ইউসুফ খান) হলেন একজন ভারতীয় চলচ্চিত্র অভিনেতা, যিনি “ট্রাজেডি কিং” নামে সুপরিচিত,[২] এবং সত্যজিৎ রায়ের মতে সর্বশেষ রচনাশৈলী একজন গুণী অভিনেতা।[৩] তিনি ১৯৪৪ সালে “বোম্বে টকিজের” ব্যানারে “জোয়ার ভাটা” চলচ্চিত্রে অভিনয়ের মাধ্যমে চলচ্চিত্র শিল্পে পদার্পণ করেন। তিনি চলচ্চিত্র শিল্প ছয় দশকের অধিক সময় ধরে বিচরণ করেছেন এবং অভিনয় করেছেন ৬০টির বেশি ছায়াছবিতে। তিনি বিভিন্ন ধরনের বৈচিত্রময় ভূমিকায় অভিনয় করেছেন, যেমন- রোমান্টিক ধাঁচের চলচ্চিত্র হিসেবে ১৯৪৯ সালের আন্দাজ, ১৯৫২ সালের বেপরোয়া বা হঠকারী এবং চালবাজ চরিত্রে আন, ১৯৫৫ সালে নাটকীয় চলচ্চিত্র দেবদাস, ১৯৫৫ সালের হাস্যরসাত্মক চলচ্চিত্র আজাদ, ১৯৬০ সালে ঐতিহাসিক চলচ্চিত্র মুঘল-ই-আজম, এবং ১৯৬১ সালের সামাজিক ঘরানার চলচ্চিত্র গঙ্গা যমুনা।

দিলীপ কুমার

জন্ম
মুহাম্মদ ইউসুফ খান
১১ ডিসেম্বর ১৯২২ (বয়স ৯৮)
পেশোয়ার, ব্রিটিশ ভারত
(এখন খাইবার পাখতুনখা, পাকিস্তান)
জাতীয়তা
ভারতীয়
পেশা
চিত্রাভিনেতা
প্রযোজক
রাজনীতিবিদ
কর্মজীবন
১৯৪৪–১৯৯৮
দাম্পত্য সঙ্গী
সায়রা বানু (১৯৬৬ – বর্তমান)
আসমা (১৯৮২)
স্বাক্ষর

১৯৭৬ সালে, দিলীপ কুমার ছবিতে অভিনয় থেকে পাঁচ বছর বিরতি নেন এবং ছায়াছবি ক্রান্তি প্রধান চরিত্রে অভিয়ের মাধ্যমে চলচ্চিত্রে নিয়মিত হন এবং প্রধান চরিত্রে নিয়মিত অভিনয় চালিয়ে যান। যেমন: “শক্তি” (১৯৮২), “কর্ম” (১৯৮৬) এবং “সওদাগর” (১৯৯১)। তার সর্বশেষ অভিনীত চলচ্চিত্র ছিল “কিলা” (১৯৯৮)। দিলীপ কুমার অভিনেত্রী “বৈজয়ন্তীমালার” সাথে সবচেয়ে বেশীসংখ্যক চলচ্চিত্রে কাজ করেছেন, যেখানে তারা উভয়েই একসাথে নিজেদের প্রযোজিত প্রতিষ্ঠান থেকে “গঙ্গা যমুনা” সহ সাতটি ছায়াছবিতে অভিনয় করেন। তাদের দুজনের মধ্যে সবসময়ের জন্য বোঝাপড়া খুবই ভাল ছিল।

ভারত সরকার ১৯৯১ সালে তাকে পদ্মভূষণ পুরস্কারে পদক দিয়ে সম্মানিত করেন এবং ১৯৯৪ সালে ভারতীয় চলচ্চিত্রের প্রতি তার অবদানসমূহের জন্য দাদাসাহেব ফালকে পুরস্কার পদকে ভূষিত করেন এবং রাজ্যসভায় তাকে একটি নির্দিষ্ট সময়ের জন্য ভারতীয় পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষের সদস্যপ মনোনীত করা হয়। তিনি ১৯৫৪ সালে ফিল্মফেয়ার শ্রেষ্ঠ অভিনেতার পুরস্কার প্রথম পদক গ্রহণ করা ব্যক্তি এবং এখনও পর্যন্ত সবচেয়ে বেশিবার ফিল্মফেয়ার পুরস্কার পাওয়ার ইতিহাস তার ঝুলিতে যিনি এখনও পর্যন্ত মোট আটটি বিভাগে পুরস্কার জিতেছেন। সমালোচকরা হিন্দি চলচ্চিত্রের ইতিহাসে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ অভিনেতা হিসেবে তাকে প্রশংসিত করেন।একটি ব্লগ পোস্টে অমিতাভ বচ্চন সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ অভিনেতা হিসেবে দিলীপ কুমারকে বেছে নিয়ে বিবৃতি প্রদান করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.