মনমোহন সিং বললেন “জাতীয়তাবাদের নামে দেশে উগ্রপন্থা ছড়ানোর চেষ্টা হচ্ছে”

Spread the love

জাতীয়তাবাদের নামে দেশে উগ্রপন্থা ছড়ানোর চেষ্টা হচ্ছে: মনমোহন সিং ‘

ওয়েব ডেস্ক:- জ্বলছে দিল্লি ,জ্বলছে দেশ মিথ্যার আশ্রয়ে দেশ আজ বিপন্ন ।এ কেমন নোংরা রাজনীতির খেলা।এবার মুখ খুললেন ,
প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং শনিবার গেরুয়া শিবিরকে এক আপাত আক্রমণে বলেছেন, “ভারত মাতা কি জয়” শ্লোগানকে ভারতের “জাতীয়তাবাদ” ধারণা তৈরির জন্য অপব‌্যবহার করে দেশে একটা বিচ্ছিন্নতার আবহ তৈরি করা হচ্ছে। এটা হতে থাকলে দেশের লক্ষ লক্ষ মানুষ বিচ্ছিন্ন হয়ে যাবে।

জওহরলাল নেহেরুর রচনা ও বক্তৃতা নিয়ে একটি বইয়ের সূচনা অনুষ্ঠানে এক সমাবেশে ভাষণে মনমোহন সিং বলেছেন যে, ভারত যদি প্রাণবন্ত গণতন্ত্র হিসাবে দেশগুলির সম্মিলনে স্বীকৃত হয়ছে এবং যদি এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ বিশ্বশক্তি হিসাবে বিবেচিত হয়ছে তবে তা ছিল প্রথম প্রধানমন্ত্রীর জন্য ।

মনমোহন সিং বলেছেন, জওহরলাল নেহেরু এই দেশকে তার অস্থির ও গঠনমূলক দিনগুলিতে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন, যখন তারা বিভিন্ন গণতান্ত্রিক জীবনযাত্রা অবলম্বন করেছিল, যেখানে সামাজিক ও রাজনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গি পৃথক ছিল।এই দেশের পাহাড়, নদী, জঙ্গল ও মাঠ সব কিছুই আমাদের সকলের কাছে গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু, সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ হলেন ভারতবাসী। যাঁরা আসমুদ্রহিমাচলে ছড়িয়ে রয়েছেন।

তিনি বলেন, ভারতের প্রথম প্রধানমন্ত্রী, যিনি ভারতীয় এতিহ্যের জন্য অত্যন্ত গর্বিত ছিলেন, তিনি এটি সংহত করেছিলেন এবং তাদেরকে একটি নতুন আধুনিক ভারতের প্রয়োজনের সাথে মিলিত করেছিলেন, তিনি বলেছিলেন।

মনমোহন সিং বলেছিলেন, “জওহরলাল নেহেরু না থাকলে আজকের রূপ পেত না ভারত। একাধিক বিশ্ববিদ‌্যালয়, শিক্ষা এবং সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেছিলেন তিনি।

“তবে দুর্ভাগ্যক্রমে, এমন একটি অংশের লোক যাদের ইতিহাস পড়ার ধৈর্য নেই বা তারা ইচ্ছাকৃতভাবে তাদের কুসংস্কার দ্বারা পরিচালিত হতে চান, নেহরুকে একটি মিথ্যা আলোকে চিত্রিত করার জন্য যথাসাধ্য চেষ্টা হচ্ছে। তবে আমি নিশ্চিত, ইতিহাসের সক্ষমতা আছে “জাল এবং নেহেরুকে ভুলভাবে তুলে ধরার চক্রান্ত হচ্ছে। তবে ইতিহাসের মিথ‌্যা ব‌্যাখ‌্যা দেওয়ার কৌশল মানুষ একদিন প্রত‌্যাখ‌্যান করবেন।” তিনি বলেছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.