সকলের প্রতি কৃতজ্ঞাতা জানাল মমতা ব্যার্নাজী ‘এক টাকাই হোক বা লক্ষ কোটি, যাঁরা ত্রাণ দিয়েছেন তাদেরকে’

Spread the love

অয়ন বাংলা ,ওয়েব ডেস্ক:- গোটা বিশ্বের সঙ্গে সঙ্গে বাংলা সমানে লড়াই চালিয়ে করোনা র বিরুদ্ধে ।মাননীয়া মমতা ব্যার্নাজী প্রতিনিয়ত গোটা রাজ্য জুড়ে করোনার বিরুদ্ধে সামনে থেকে লড়ে যাচ্ছেন । করোনা মোকাবিলা করতে পশ্চিমবঙ্গ সরকার ত্রাণ তহবিল গঠন করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। সেই ত্রাণ তহবিলের সঙ্গেই যুক্ত করেছেন মুখ্যমন্ত্রী ত্রাণ তহবিলকে। এবার ত্রাণ তহবিল নামে হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপ চালু করা হবে। এছাড়াও ত্রাণ সংক্রান্ত একটি অ্যাপ আনতে চলেছে রাজ্য সরকার। খুব শীঘ্রই তা তৈরি হবে। বুধবার নবান্নে চিকিৎসকদের সঙ্গে বৈঠকের পর এমনটাই জানালেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ধন্যবাদ জানালেন ত্রাণ দাতাদেরও।

ইতিমধ্যেই মুখ্যমন্ত্রীর তৈরি করা ত্রাণ তহবিলে অনুদান দিতে শুরু করেছেন বহু মানুষ। এদিন তাঁদের উদ্দেশ্যে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘ যাঁরা এক টাকা ত্রাণ দিয়েছেন তাঁদের প্রতি যেমন আমার কৃতজ্ঞতা রয়েছে তেমনি যারা লক্ষ লক্ষ কোটি কোটি টাকা দান করেছেন তাঁদের কাছেও আমি সমান কৃতজ্ঞ।’

মুখ্যমন্ত্রীর কথায়, এই ত্রাণের টাকার থেকেই রাজ্য সরকারকে বিপর্যয় সামাল দিতে হচ্ছে। মাস্ক কেনা থেকে শুরু করে যাদের কোয়ারান্টিন বা আইসোলেশন- এ রাখা হয়েছে তাঁদের খেতে দেওয়া, চিকিৎসা করা, সমস্ত খরচ করতে হচ্ছে রাজ্য সরকারকে। সাধ্যমত ত্রাণ দেওয়ার জন্য তিনি সাধারণ মানুষকে আবেদন জানান।

অন্যদিকে বলেন, অত্যাবশ্যকীয় প্রয়োজনে যোগাযোগ করা যেতে পারে মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে। এই মর্মে একটি বিজ্ঞপ্তিও প্রকাশ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়। তার জন্য রয়েছে নির্দিষ্ট একটি ফোন নম্বর। ওই নম্বরে ফোন করে অসুবিধার কথা জানাতে হবে। প্রয়োজন বুঝে তৎক্ষণাৎ ব্যবস্থা নেবে মুখ্যমন্ত্রীর দফতর। মঙ্গলবার তৃণমূল কংগ্রেসের অফিশিয়াল ওয়েবসাইটে এই নিদৃষ্ট নাম্বারটি দেওয়া হয়। নম্বরটি হলো— 9433 002 391। নম্বরে ফোন করলে মুখ্যমন্ত্রীর দফতর থেকে সৌম্য হালদার ফোনটি ধরবেন। তিনি ব্যক্তির সমস্ত কিছু শুনে তা মুখ্যমন্ত্রীর কাছে জানাবেন। এই বিষয়ে মুখ্যমন্ত্রী লিখেছেন, ‘সারা পৃথিবীতে একই বিপর্যয় পরিস্থিতির তৈরি হয়েছে। বাংলাতেও তার প্রভাব পড়বে। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে যারা দায়িত্ব ও নিষ্ঠার সঙ্গে রাজ্যের মানুষের সেবা করে চলেছেন তাঁদের আমি কুর্নিশ জানাচ্ছি।’

মুখ্যমন্ত্রী ওই বিজ্ঞপ্তিতে রাজ্যের মানুষকে নিজের এবং পরিবারের খেয়াল রাখার কথা জানিয়েছেন। একই সঙ্গে তিনি ডাক্তার নার্স পুলিশকর্মী সহ অত্যাবশ্যকীয় পরিষেবায় যুক্ত কর্মীদের বারবার ধন্যবাদ ও কুর্নিশ জানিয়েছেন। সেখানে তিনি লিখেছেন, ‘আপনি নিজের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে যে দায়িত্ব ও নিষ্ঠার সঙ্গে রাজ্যের মানুষের সেবা করে চলেছেন, তাঁকে আমি কুর্নিশ জানাচ্ছি।’

রাজ্যে করোনা মোকাবিলা ইতিমধ্যেই একগুচ্ছ পদক্ষেপ নিয়েছে রাজ্যসরকার। সাধারণ মানুষের সুবিধার্থে সম্পূর্ণ বিনামূল্যে রেশন বিলি করার ব্যবস্থাও করা হয়েছে। এদিকে লকডাউন পরিস্থিতিতে বিভিন্ন বিষয়ে নাজেহাল সাধারণ মানুষ। এই অবস্থায় সাধারণ মানুষের সুবিধার্থে বাধ্য হয়েই এই ব্যবস্থা বলে জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.