ব্রিটিশ আমলের ‘রাষ্ট্রদ্রোহ আইন’ বাতিল করতে চায় সুপ্রিম কোর্ট, বিরোধিতায় মোদী সরকার

Spread the love

নিউজ ডেস্ক : স্বাধীনতার পর থেকে অসংখ্য নির্দোষ মুসলিমকে এই আইনের কারণে জেলের অন্ধকার কুটিরে জীবনের কয়েক যুগ পার করতে হয়েছে রাষ্ট্রদ্রোহ আইনের কারণে। কোনো প্রমাণ ছাড়াই সরকার এই আইন ব্যবহার করে তাদের মতের বিরুদ্ধে অবস্থানকারী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে। মোদি সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকে সব মুসলিম রাজনৈতিক বন্দীদের বিরুদ্ধে ইংরেজদের তৈরি এই কালাকানুন ব্যবহার করে। তবে এবার এই আইনের বাতিলের পক্ষেই মত দিল সুপ্রিম কোর্ট।

রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা ঔপনিবেশিক আইনের অন্তর্গত। স্বাধীনতা আন্দোলনকে থামিয়ে দেওয়ার উদ্দেশ্যে এই আইন তৈরি হয়েছিল। মহাত্মা গাঁধী, বালগঙ্গাধর তিলককেও চুপ করানোর জন্য এই আইন ব্যবহার করেছিল ব্রিটিশরা। স্বাধীনতার ৭৫ বছর পর এই আইনের কি আর প্রয়োজন রয়েছে? কেন্দ্রের উদ্দেশে রাষ্ট্রদ্রোহ আইনের সাংবিধানিক বৈধতাকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে করা মামলার শুনানিতে এই প্রশ্ন করেন প্রধান বিচারপতি এনভি রমানা।

ব্রিটিশ আমলের রাষ্ট্রদ্রোহ আইনকে “ঔপনিবেশিক” হিসাবে বর্ণনা করে সুপ্রিম কোর্ট আজ প্রশ্ন তোলে যে আইনটি “স্বাধীনতার ৭৫ বছর পরেও” আদৌ প্রয়োজনীয় কিনা। আইনটি প্রতিষ্ঠানগুলির কার্যক্রমের জন্য মারাত্মক হুমকি এবং নির্বাহীর কোনও জবাবদিহিতা না থাকায় অপব্যবহারের “বিপুল ক্ষমতা” রয়েছে। আদালত রাষ্ট্রদ্রোহ আইনকে ছুতোরের হাতের করাতের সাথে তুলনা করেছে।

“রাষ্ট্রদ্রোহ আইন একটি ঔপনিবেশিক আইন। স্বাধীনতার ৭৫ বছর পরও আমাদের কি এখনও দেশে আইনের দরকার আছে,” প্রধান বিচারপতি এনভি রমন প্রশ্ন করেন। সরকারের শীর্ষ আইনজীবী অ্যাটর্নি জেনারেল কে কে ভেনুগোপাল যুক্তি দেন যে “নির্দেশিকা” সহকারে রেখে আইনটি বজায় রাখা উচিত ।
প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বে তিন বিচারপতির বেঞ্চ রাষ্ট্রদ্রোহিতার অভিযোগে ভারতীয় দণ্ডবিধির ১২৪ এ এর রাষ্ট্রদ্রোহ সম্পর্কিত ধারাটি করাতের সঙ্গে তুলনা করেন, যা কোনো কাঠের টুকরোর পরিবর্তে পুরো বন কাটতে ব্যবহৃত হয়।

“যদি কোনও পুলিশ অফিসার কোনও কিছুর জন্য কোনও গ্রামে কারো ব্যবস্থা করতে চান তবে তিনি ধারা ১২৪এ ব্যবহার করতে পারেন … লোকেরা আতঙ্কিত হয়ে যায় এক্ষেত্রে।”

আদালত বলে তারা রাষ্ট্রদ্রোহ আইনের বৈধতা যাচাই করবে এবং কেন্দ্রকে প্রাক্তন সেনা কর্মকর্তার আবেদনের জবাব দিতে বলেছে। ওই সেনা কর্তার মতে, আলোচ্য আইনটি বাকস্বাধীনতার ওপর মারাত্মক প্রভাব সৃষ্টি করে, মত প্রকাশের ক্ষেত্রে অযৌক্তিকভাবে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.