প্রকৃতির কি বিস্ময়কর খেয়াল আফ্রিকা-সৌদির মরুভূমিতে তুষারপাত, রাশি রাশি বরফ বালির উপর

Spread the love

প্রকৃতির কি বিস্ময়কর খেয়াল আফ্রিকা-সৌদির মরুভূমিতে তুষারপাত, রাশি রাশি বরফ বালির উপর

নিউজ ডেস্ক : – সারা বিশ্বে এমন বেশ কিছু এলাকা রয়েছে যেখানে জানুয়ারি মাসে মারাত্মক ঠাণ্ডা এবং তুষারপাত শুরু হয়। তবে আফ্রিকা ও মধ্য প্রাচ্যের মরুভূমিতে এমন ঘটনা খুবই কম ঘটে। তবে এ বছর আফ্রিকার সাহারায় ভারী তুষারপাত হয়েছে এবং সৌদি আরবে তাপমাত্রা নেমে গেছে ২ ডিগ্রি সেলসিয়াসে। এই অঞ্চলের মরুভূমিতে হলুদ বালি সাদা বরফে ঢেকে গিয়েছে।

সাহারা মরুভূমির বালির ওপরে এই বরফের আস্তরণের কয়েকটি ছবিও সামনে এসেছে। জিও টিভির রিপোর্ট অনুযায়ী, সৌদি আরবের আসির অঞ্চলে প্রান্তরে এই বিরল তুষারপাত দেখতে স্থানীয় বাসিন্দা এবং বিদেশি পর্যটকরা আসছেন।

এর একটি ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায়ও ভাইরাল হয়ে গিয়েছে। যেখানে স্পষ্ট ভাবে দেখা যাচ্ছে, তুষারপাত হচ্ছে। তবে শীত মৌসুমে সাধারণত এখানে তুষারপাত হয় না।
অন্তত এক মিটার পুরু সেই বরফের চাদর। সেই ছবি এবং খবর প্রকাশিত হয়েছে মিরর-এ।

সাহারায় শিহরণ! পুরু বরফের চাদরে মরুভূমি, চলছে ‘স্লেজ’

কী দেখা গিয়েছে এ দিন? বালিয়াড়ি ঢেকেছে বরফে, তার উপর থেকে স্লেজের মতো গাড়ি করে নামছেন স্থানীয়রা। দৃশ্য আলজিরিয়ায় আইন সেফ্রা শহরের।

সাহারার আইন সেফরাকে মরুভূমির দ্বার বলা হয়। সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে প্রায় ১০০০ মিটার উঁচুতে অবস্থিত, এই এলাকা আটলাস পর্বত দ্বারা বেষ্টিত। সাহারা মরুভূমি উত্তর আফ্রিকার বেশিরভাগ অঞ্চলে ছড়িয়ে রয়েছে। গত হাজার হাজার বছর ধরে এখানে তাপমাত্রা এবং আর্দ্রতায় বড় পরিবর্তন হয়েছে।

তবে একদল বিশেষজ্ঞরা আশা করছেন, এই মরুভূমি আবারও সবুজ হবে। কিন্তু বর্তমানে সৌদি আরবের মরুভূমিতে তুষারপাত হওয়ায় যারপরনাই আনন্দিত সেখানকার স্থানীয় লোকেরা। প্রচুর পর্যটকেরাও সেখানে আসছেন।

রিপোর্ট মোতাবেক, এলাকায় প্রায় ৫০ বছর পর তাপমাত্রা এত কমে গিয়েছে। দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে পারদ মাইনাস ২ ডিগ্রি সেলসিয়াসে নেমে গেছে। মরুভূমিতে বরফের মধ্যে উটে চড়ে অনেকে সোশ্যাল মিডিয়ায় ছবি শেয়ার করছেন। উল্লেখ্য, মরুভূমিতে তুষারপাত খুব বিরল। তবে ঠাণ্ডা কিন্তু এখানেও অনেক পড়ে। রাতের বেলা তাপমাত্রা হঠাৎ নেমে আসে।

৩৭ বছরে এই প্রথমবার পৃথিবীর উষ্ণতম মরুভূমির লালচে বালির উপরে সাদা বরফের কুচি দেখা যায়। কিন্তু রবিবার সকাল থেকে এ দৃশ্য একেবারে চমকে দিয়েছে সকলকে। একে তো বরফ দেখে স্থানীয়দের যাবতীয় কাজকর্ম মাথায় উঠেছে। তাঁরা সকলে প্রায় নাওয়াখাওয়া ভুলে বরফে হুটোপুটি জুড়ে দিয়েছেন। তার উপরে রাস্তাঘাট পিচ্ছিল হয়ে সার বেঁধে গাড়ি দাঁড়িয়ে গিয়েছে।

সবথেকে খুশি যে শিশুরা, তা আলাদা করে বলে দিতে হয় না। অসময়ে (এবং অবশ্যই চরম অপ্রত্যাশিত স্থানে) রাতারাতি গজিয়ে উঠেছে স্নোম্যান! স্লেজের মতো গাড়ি করে বালিয়াড়ি থেকে তরতরিয়ে নেমে আসছে তারা

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.