শতাব্দীর ফেসবুক পোষ্ট ঘিরে জল্পনা এবার কি বিজেপিতে ? জল্পনা তুঙ্গে

Spread the love

এবার তৃনমূল ছেড়ে শতাব্দীও কি বিজেপিতে ? জল্পনা তুঙ্গে

পরিমল কর্মকার (কলকাতা) : তৃণমূল ছেড়ে দলে দলে নেতা-কর্মীরা যখন বিজেপি’তে যোগদান করছেন, ঠিক সেই সময়ই তৃণমূল সাংসদ শতাব্দী রায়ের একটি ফেসবুক পোস্ট-কে কেন্দ্র করে রাজনৈতিক মহলে জল্পনা এখন তুঙ্গে। অনেকেই বলছেন শতাব্দীও কি তাহলে বিজেপি’র দিকে পা বাড়াতে চলেছেন ! কারণ দলে থেকেও কাজ করার সুযোগ তিনি পাচ্ছেন না বলে ওই পোস্টে উল্লেখ করেছেন শতাব্দী রায় স্বয়ং। আর এই ফেসবুক পোস্টটাই দলের বিরুদ্ধে তার ক্ষোভের কারণ বলেই মনে করছেন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা।

১৪ জানুয়ারি (বৃহস্পতিবার) এই ফেসবুক পোষ্টে কি লিখেছেন শতাব্দী রায় ? ফেসবুকে শতাব্দী লিখেছেন….” বীরভূমে আমার নির্বাচন কেন্দ্রের মানুষের প্রতি, 2021 খুব ভালো কাটুক, সুস্থ থাকুন, সাবধানে থাকুন। এলাকার সাথে আমার নিবিড় যোগাযোগ। কিন্তু ইদানিং অনেকে আমাকে প্রশ্ন করছেন, কেন আমাকে বহু কর্মসূচিতে দেখা যাচ্ছে না ? আমি তাদের বলেছি যে, আমি সর্বত্র যেতে চাই। আপনাদের সঙ্গে থাকতে আমার ভাল লাগে। কিন্তু মনে হয় কেউ কেউ চায় না আমি আপনাদের কাছে যাই। বহু কর্মসূচির খবর আমাকে দেওয়া হয় না। না জানলে আমি যাব কি করে ? এ নিয়ে আমারও মানসিক কষ্ট হয়। গত দশ বছরে আমি আমার বাড়ির থেকেও আপনাদের কাছে বা আপনাদের প্রতিনিধিত্ব করতে কাটিয়েছি, আপ্রাণ চেষ্টা করেছি কাজ করার, এটা শত্রুরাও স্বীকার করে। তাই এই নতুন বছরে এমন সিদ্ধান্ত নিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করছি, যাতে আপনাদের সঙ্গে পুরোপুরি থাকতে পারি। আপনাদের প্রতি আমি কৃতজ্ঞ। 2009 সাল থেকে আপনারা সমর্থণ করে আমাকে লোকসভায় পাঠিয়েছেন। আশাকরি ভবিষ্যতেও আপনাদের ভালোবাসা পাবো। সাংসদ অনেক পরে, তার অনেক আগে থেকেই শতাব্দী রায় হিসেবেই বাংলার মানুষ আমাকে ভালোবেসে এসেছেন। আমিও আমার কর্তব্য পালনের চেষ্টা করে যাব।
যদি কোনও সিদ্ধান্ত নিই, আগামী 16 জানুয়ারি 2021 শনিবার দুপুর দু’টোয় জানাব।”

এই ধরনের একটি ফেসবুক পোস্ট প্রকাশ্যে আসতেই রাজনৈতিক মহলে আলোড়ন পড়ে যায়। রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা অনেকেই বলছেন, শতাব্দীর ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ ঘটেছে এই ফেসবুক পোস্টে। স্বাভাবিক কারণেই তিনি বিজেপি’তে গেলেও অবাক হওয়ার কিছু নেই।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.