অযোধ্যা মামলা নিয়ে যাবতীয় বিবাদ যখন মিটছে বলে মনে করা হল, ঠিক তখনই শীর্ষ আদালতের দ্বারস্থ পি এফ আই

Spread the love

ওয়েব ডেস্ক:- এবার অযোধ্যা নিয়ে সুপ্রিম কোর্টে পি এফ আই ।অযোধ্যার বিতর্কিত জমিতে রাম মন্দির বানানোর জন্য ট্রাস্ট গঠন করেছে মোদি সরকার। সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ মতো সরকারের দেওয়া পাঁচ একর জমি গ্রহণ করার সিদ্ধান্তও নিয়ে ফেলেছে সুন্নি ওয়াকফ বোর্ড। সবমিলিয়ে অযোধ্যা মামলা নিয়ে যাবতীয় বিবাদ যখন মিটছে বলে মনে করা হল, ঠিক তখনই শীর্ষ আদালতের দ্বারস্থ পপুলার ফ্রন্ট অফ ইন্ডিয়া (পিএফআই)।

গত ৯ নভেম্বর ঐতিহাসিক অযোধ্যা মামলার রায় ঘোষণা করে সুপ্রিম কোর্ট। শীর্ষ আদালতের তৎকালীন প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ রায়ের দীর্ঘ প্রতিলিপি পড়ে জানান, অযোধ্যার বিতর্কিত জমি যাবে রাম জন্মভূমি ন্যাসের অধীনে। মসজিদ তৈরির জন্য সুন্নি ওয়াকফ বোর্ডকে বিকল্প ৫ একর জমি দেওয়ার নির্দেশ দেয় শীর্ষ আদালতের সাংবিধানিক বেঞ্চ। শীর্ষ আদালতের এই রায়কেই এবার চ্যালেঞ্জ জানিয়ে মামলা করল পপুলার ফ্রন্ট অফ ইন্ডিয়া। শুক্রবারই রায় সংশোধনের আরজি জানিয়ে শীর্ষ আদালতের দ্বারস্থ হয়েছে তারা। পিএফআইয়ের আবেদন, খোলা আদালতে বিষয়টি আরও একবার আলোচনা করা উচিত। সেই সঙ্গে তাদের দাবি, এই রায়ে আপাতত স্থগিতাদেশ জারি করুক শীর্ষ আদালত।

তবে ইতিমধ্যেই কেন্দ্রের দেওয়া পাঁচ একর জমি গ্রহণ করতে রাজি হয়েছে উত্তরপ্রদেশ সুন্নি ওয়াকফ বোর্ড। তাদের তরফে জানানো হয়, ওই জমিতে মসজিদের পাশাপাশি তৈরি হবে একটি গবেষণা কেন্দ্র, একটি হাসপাতাল এবং একটি পাঠাগারও। এদিকে দিল্লিতে বিধানসভা নির্বাচনের আগে সংসদে দাঁড়িয়ে রাম মন্দির নির্মাণের জন্য ট্রাস্ট তৈরির কথা ঘোষণা করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। তিনি বলেন, “শীর্ষ আদালতের নির্দেশ মেনে ক্যাবিনেট শ্রী রামজন্মভূমি তীর্থক্ষেত্র নামে একটি ট্রাস্ট স্থাপনের বিস্তারিত পরিকল্পনা তৈরি করেছে। এই ট্রাস্ট নতুন করে রাম মন্দির নির্মাণ ও এই সম্পর্কিত সমস্ত বিষয়ে স্বাধীনভাবে সিদ্ধান্ত নেবে।”
উল্লেখ্য, এর আগে উত্তরপ্রদেশের শাস্তিরক্ষা দল বা পিস পার্টি অযোধ্যা ইস্যুতে সুপ্রিম রায়ের বিরুদ্ধে মামলা করেছিল। দ্বিতীয় সংগঠন হিসেবে একই পথে হাঁটল পিএফআই। তবে সুপ্রিম নির্দেশে সমস্ত প্রক্রিয়া এতদূর এগিয়ে যাওয়ার পর নতুন করে এই মামলা কতখানি ফলপ্রসু হয়, সে নিয়ে সন্দীহান ওয়াকিবহাল মহল।

সৌজন্য:- সংবাদ প্রতিদিন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.