বেহালার ১২১ নম্বর ওয়ার্ডে মিলনমেলার রূপ নিলো বিবাহ বার্ষিকীর পার্টি

Spread the love

বেহালার ১২১ নম্বর ওয়ার্ডে মিলনমেলার রূপ নিলো বিবাহ বার্ষিকীর পার্টি

পরিমল কর্মকার (কলকাতা) : বেহালার অন্যতম যুব সংগঠক তথা যুব নেতা সোমনাথ ব্যানার্জীর (বাবন) ১৮তম বিবাহ বার্ষিকী উপলক্ষে রবিবার (২৬ জুন) আয়োজন করা হয়েছিল এক সান্ধ্যভোজের পার্টি। এদিন বেহালার ১২১ নম্বর ওয়ার্ডে দীপক স্মৃতি সংঘে এই অনুষ্ঠানে মিলিত হয়েছিলেন প্রায় হাজার খানেক মানুষ। শিল্পী, সাহিত্যিক, বুদ্ধিজীবী, সাংবাদিক, আইনজীবী, আই.পি.এস অফিসার — কে নেই তাতে ? সর্বোপরি এলাকার সাধারণ মানুষের আগমনে মিলনমেলার রূপ নেয় এদিনের পার্টি।

এদিন এই অনুষ্ঠানে যুব সম্প্রদায়ের ভিড় ছিল চোখে পড়ার মতো। যুব থেকে শুরু করে প্রবীণ মানুষেরা সকলেই ব্যানার্জী দম্পতিকে শুভেচ্ছা ও আশীর্বাদ করে মঙ্গল কামনা করেছেন। আমন্ত্রিতরা অনেকই বললেন, “বাবন আমাদের ঘরের ছেলে। আপদে-বিপদে ডাকলেই ওকে পাশে পাই। তাই আমরা ওর পাশেই থাকতে চাই।”

এলাকার যুবকেরা তো এক বাক্যে বাবনের প্রশংসায় উচ্ছসিত। সকলেরই বক্তব্য, “কার মেয়ের বিয়ে হচ্ছেনা, কে ওষুধ কিনতে পারছে না, রাত-বেরাতে কাকে হাসপাতালে নিয়ে যেতে হবে — সকলেরই ভরসা বাবন দা। তাই আমরা বাবন দার সঙ্গে ছিলাম, আছি, থাকবো।

আপনার প্রতি কেন এত জন-সমর্থন এমনই এক প্রশ্নে, বাবন (সোমনাথ) বললেন, ছোটবেলা থেকে সংগঠণ করে আসছি। মানুষের সেবা করাই পরম ব্রত বলে জেনে এসেছি, তাই সকলের সঙ্গে মিলে মিশে কাজ করতে ভালোবাসি। তাই সকলকে নিয়ে সেই কাজই করে চলেছি। তবে মানুষের কতটা উপকার করেছি, তার জবাব দিতে পারবেন এলাকার মানুষ।”

সবশেষে বলতেই হচ্ছে — এদিনের পার্টিতে জনস্রোত চোখে আঙ্গুল দিয়ে আবার দেখিয়ে দিলো “বাবন” আছেন আগের বাবনে’ই। তরুণ, যুবদের আদর্শ হয়তো বাবন’ই। তাই শুভেচ্ছা আর আশীর্বাদের বন্যায় ভরে গেল এদিনের সান্ধ্যভোজের আসর।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.